সাইমন সিনেক এর ‘স্টার্ট উইথ হোয়াই’ থেকে শেখার মত ৩ টি বিষয়

বিজনেস বা মার্কেটিং নিয়ে যে কারো সাথে ডিসকাশনের সময় আমার মুখ থেকে অটোমেটিক সাইমন সিনেক নামটি চলে আসে। যেকোনো বিজনেস বা মার্কেটিং ক্যাম্পেইন ডিজাইন এবং ডেভেলপ করার সময় আমি তার Start With Why বইতে মেনশন করা Golden Circle ফলো করার আপ্রাণ চেষ্টা করি।

তার বইয়ের সারমর্ম লেখার মত জ্ঞান বা ধৃষ্টতা, কোনটাই আমার নেই। হাবস্পট এর টুইটার একাউন্ট থেকে বেন এর লেখা একটি পোস্ট পেয়েছিলাম। সেখানে তিনি যে প্রধান ৩ টি বিষয় উল্লেখ করেছেন, তার সাথে আমি একমত এবং সেখান থেকেই পরিমার্জন করে এই পোস্ট টি লিখছি।

Read More

6 Times I failed to establish a business

Why am I sharing this?

Well, this is sort of a reference post that I am about to write in future. It will add more weight to what I am saying.

Anyway, It started when I was in school. I used to work for a signboard and banner making shop and learnt to navigate through Adobe Illustrator and Adobe Photoshop a little.

1. Advertising Service

I wanted to work as a third party who gets orders from businesses and gets them done from the place I used to work. I designed my own business card saying that I own an advertising company (which I didn’t), printed it and distributed around the place I used to live. I didn’t get a single order! Moreover, someone spread my number to telemarketing shitheads and I still get calls even after 9 years!

2. eLearning Website

At my early days of college, I wanted to open a eLearning website because I was not happy with my teachers. I used to watch tutorials on YouTube and felt that I can make videos in Bangla with the best teachers in the country. So I joined a web development course. During the three month duration, I got so much involved in writing code and felt exciting that I forgot about the eLearning portal and started to dream about becoming a programmer.

3. Freelance Web Developer

Right after finishing the web development course I opened profile at every possible freelancing platform and started looking for work. I did find a couple but my skills were not enough for professional grade work. So I thought of having a pause and increase my skills.

4. Domain Hosting Company

I joined a web development training center to teach people about markup language and how to use a CMS to create a website. It was the time of “24.com” boom and the training center owner wanted to open yet another news portal. When I successfully completed one website, he introduced me with his journalist friends and got 7 new orders for news portals. None of them paid a single penny and also I was not getting my salary on time. So I left the job and also forgot about having a domain hosting company.

5. Bulk T Shirt Printing

I was jobless for 24 days and I thought about what else I can do! I saved 10,000 taka till then and I thought I can buy cheap t-shirts, print some unique designs and sell to the shops. I put a lot of effort this time and travelled to at least 10 different printing companies and RMG factories. Some of them were out of the city and required an entire day to reach and come back! None of them agreed to sell a smaller amount or print smaller amount. Also printing smaller amounts will increase the cost a lot. So I realized 10K BDT is not enough to start a business and I forgot about this as well.

6. Software Company

When I left my job from a software company as a business development manager, I thought I’m old enough to handle a company and can gather some developers and agree to work as partners(in plain words, unpaid developers). Also, seed funding, crowdfunding, startup, angel investors were the buzzwords at that time. So I got the courage to discuss the idea with some of my ex-colleagues and they all agreed. Meanwhile, I got a message from a client that he wants to invest in our company. But the final discussion went from investing in our company to owning our company. During the discussion, we registered the company so that we can legally take partners and sell shares. That cost us a hell lot of money but none of us wanted to do yet another job. So the investment discussion ended and all of us lost motivation making a company from volunteer work.

The developers parted their ways but I tried to keep that dream alive. I hired content writers from my university wanted to keep the blog running to get attention from potential investors. Also, shared the mockups I made from a designer with my own personal fund. That too was a handsome amount for any Bangladeshi. They were preparing to write about project management tips and software reviews but it didn’t last long as they were not progressing that well. I was going through depression as well. The domain ManagX.com is still up and running with no complete content. I keep renewing it and will launch it someday. Because I invested a lot in this and I will keep this dream alive.

My thoughts on winning employee loyality

When someone says my employees do not last long or they leave without prior notice, the first thought comes to anyone is that the company might not have offered enough cash. People work for cash for sure but that does not drive them every single day. I myself is an employee and have worked for Americans, Indians, Italians and Bangladeshies. I have worked around 6 years for Bangladeshi companies on their actual offices and Been working remotely for 3 years. So I have enough insights to say that

Money does not drive people

I am a big fan of Simon Sinek and his “WHY Series“. In some of his writing and talks, he said that money is just a result. If you work, you get paid. That creates a temporary happy feeling. It does not create a feeling of fulfilment. It will not get you excited to wake up every single day and go to the office.

I totally agree with him. Even luxury cars or apartments cannot make people happy or stick to a job for a longer period.

What Gets People Excited?

This is the time of millennials. From the office to schools, shopping malls, CEOs… they are everywhere. They have a certain type of behaviour and thinking process. I am not saying you should go full-on hipster and buy PlayStations and beanbags etc. Having a pingpong table or foosball creates a good vibe in the office and the new recruits think that these people are quite nice. At least the bosses are not into cannibalism. They don’t eat people.

Here’s something serious that some of my classmates and seniors in the university found about millennials, their expectations and how the company owners can align with them-

    1. Communication
      Communicate with them as much as possible. Give them brief instructions, tell them specifically what you actually want, what is the end target and what process they should follow. Don’t just leave them with a vague idea and later get frustrated with them for not meeting your expectations. Neither the employee nor the boss likes to get disappointed to disappoint either one. So make sure your managers are careful about communicating with their executives. As a CEO or GM or MD, you should talk to your employees and team leads to check if everything is going right.
    2. Quality Management
      The people on the management level needs to be really sharp and always be alert about who is doing what and how is their daily, weekly and monthly productivity. If the curve is going downwards every single day and remains for a week, they should check all the possible reasons and sit with the person immediately and fix that. Waiting for the employee to come up with a complain never works. They come with a resignation letter or don’t come at all.
    3. Branding
      People want to be a part of something greater than themselves. This is human instinct and that is why we have been building groups, communities and tribes. So branding your company locally or internationally will not only help to grow your revenue, it will also help you to find the quality human resource and retain them. Actually, there’s a saying that if you take a good care of your employees, they will take a great care of your clients. So it helps both ways.
    4. Community Involvement
      Community events, especially for IT companies, can help them in many ways. If they encourage their employees to attend conferences and speak at one at least once in a year, that will make them learn new things, connect with a bigger group of people and represent the company as well. So sending an employee for a full days workshop at home or abroad is not actually a loss in productivity, it is an investment for your human resource.
    5. Empowerment
      Letting the employees to always come up with a new idea, thinking about new solutions or optimizing the workflow are always exciting. A software developers job always does not have to be about writing software code. He can spend a day at a school understanding how things work there, what are the problems and how they can be solved. A technical writer can spend a couple of hours at twitter reading tweets about the issues people are having today and come up with an analysis. A change in tasks or letting them feel that they are free to do anything they like will always excite them and bring positive results. My point is let them do whatever they want to, discuss with them how they want to do it and as a boss, add your two cents to get some results for the company (wink wink).
    6. Make them feel special
      I know you have mentioned “performance bonus” on your job advertisement. For god’s sake please do not forget that. Award them for the small things they do or when they go beyond their responsibilities. Sometimes give them treat or buy a small gift for no reason. It creates a feeling of belonging. You can do these things in front of the entire team or in your personal room. Change their job title once in a couple of years. Focus on the small things to keep them engaged.
    7. Build the future with them
      Nearly 70% of the millennials dream of having their own company one day. This is one of the major reasons why they change their jobs frequently to gather more knowledge, experience and network.
      Most of the big companies have in-house incubation program for startups created by their current or ex-employees. They invest in those startups, buy shares and if they are making good progress, sometimes acquire them. So they actually become a family member for you. You support them to go ahead and stand on their own feet.
      Even if they fail, they will have a trustable body to take care of them.

Summing it up

Employees and bosses both feel like having an immature girlfriend to me. We always have to be alert, take the best possible care and think wisely every possible step. Yes, things will go wrong and that’s totally normal. There’s no concrete bible about how you can stop people from leaving your company and keep them until they die. Humans will always be unpredictable. So do your best, always keep an eye on the stories about other companies, how they manage their human resources, recent studies and books.

আমার প্রডাক্ট মার্কেটপ্লেস এ নিচ্ছে না! এখন কি করবো?

WordPress এর প্লাগিন, থিম বা Joomla এর কম্পোনেন্ট বা টেম্পলেট ডেভেলপ করেন আর কখনো কোন মার্কেটপ্লেসে যেয়ে একবারও রিজেক্ট হননি এমন ডেভেলপারের সংখ্যা খুবই কম।

ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপ এবং দেশি কিছু কমিউনিটি এর সাথে যুক্ত থাকার কারণে মার্কেটপ্লেস থেকে রিজেকশনের জন্য অনেক আলোচনা দেখার সুযোগ হয়েছে। এইসব আলোচনা থেকে আমার ব্যাক্তিগত মতামত এখানে লিখছি।

রিজেকশন আসলে মোটিভেশন

মার্কেটপ্লেসের রিকোয়ারমেন্ট গুলো কিন্তু ডেভেলপারদের নিরুৎসাহিত করার জন্য বানানো না। একটা প্রডাক্ট কখনোই শুধু শোকেস করার জন্য বানানো হয় না। সেটা রিয়াল ইউজারদের রিয়াল কাজে ব্যবহারের জন্য সার্ভ করা হয়। এখন মার্কেটপ্লেস এ প্রডাক্টের কোয়ালিটি খারাপ হলে ইউজার ইউজ করতে গিয়ে ঝামেলায় পড়তে পারে বা একেবারে ইউজ করতে না পেরে আনইন্সটল করে দিলো। সিকিউরিটি ইস্যু থেকে শুরু করে কনফ্লিক্ট ও হতে পারে।

এই ধরনের জটিল সমস্যা গুলো এড়ানোর জন্য মার্কেটপ্লেস গুলো কিছু স্ট্যান্ডার্ড মেইনটেইন করে। কখনো রিজেক্ট হলে মন খারাপ করবেন না। এখানে মার্কেটপ্লেস কে দোষারোপ করার কিছু নেই। মার্কেটপ্লেস সবসময় চায় আপনার প্রডাক্ট তারা যেন সেল করতে পারে। কারণ সেল হলে তাদেরও দুই পয়সা আসবে। আপনাকে ফিরিয়ে দিলে তাদের উল্টা লস। কারণ আপনার প্রডাক্ট রিভিউ করতে তাদের সময় ব্যয় হয়েছে।

অতএব রিজেক্ট করে দিলে মন খারাপ না করে দ্বিগুণ উৎসাহে ঝাঁপিয়ে পরতে হবে ঝামেলা সলভ করার জন্য। রিজেক্ট হলে তার কারণ হচ্ছে আপনার এখনো শেখা বাকি। এই রিজেকশন গুলো মোটিভেশন হিসেবে নিতে হবে।

কোনভাবেই একসেপ্ট না হলে কি করবো?

যদি বারবার চেষ্টা করেও স্ট্যান্ডার্ড মিট না হয়, তাহলে বেস্ট ওয়ে হচ্ছে কাজ অফ করে যাদেরটা অলরেডি এপ্রুভ হয়েছে, তাদের কোড দেখা।

যদি পেইড মার্কেটপ্লেসও হয়, তবে পয়সা খরচ করে কিনে দেখতে হবে। এখানে ১০-২০ হাজার টাকা যাওয়া মানে লস না। একটু কষ্ট হলেও এই শিক্ষা আপনার সারাজীবন কাজে লাগবে।

একান্তই যদি টাকা খরচ করার অপশন না থাকে, তাহলে আমি বলবো ডেভেলপমেন্ট আপনার জন্য না। কারণ একজন দিন মজুরের ৫০০ টাকা কামাই করতে হলে ২০০ টাকা দিয়ে কোদাল কিনতে হয়। পৃথিবীর এমন কোন কাজ নেই যা ইনভেস্টমেন্ট ছাড়া করা যায়। ভিক্ষা করতে হলেও থালা লাগে, লাঠি আর ব্যাগ লাগে।

দুষ্ট লোকে অবশ্য বুদ্ধি দিবে পাইরেটেড সাইট থেকে টুল ডাউনলোড করে দেখার জন্য!

তারপরও যদি বলেন ভাই আমি বাঙ্গালি, আমি বিরোধী দলের লোক বলে খেলতে নিচ্ছে না, তাহলে অপশন হতে পারে গিটহাব।

গিটহাব থেকে কিভাবে প্রডাক্ট সার্ভ করবো?

বুটস্ট্র্যাপ, ভিউজেএস সহ অনেক বড় বড় প্রজেক্টের শুরু গিটহাব থেকে। গিটহাবে ওয়েব পেজ সার্ভ করা, কোড হোস্ট করা আর রিলিজ দেয়া সব এক যায়গা থেকেই করা যায়। ফ্রি আর ওপেন সোর্স প্রজেক্টের জন্য এর চাইতে ভালো যায়গা হয়না।

এখানেও আপনি মার্কেটপ্লেস গুলোর মত অনেক বড় ইউজার বেস পাবেন। গুগলে ভালো র‍্যাঙ্কিং আছে। পেপাল এর ডোনেশন বা পারচেস অপশন ইউজ করতে পারবেন বাটন এমবেড করে বা লিঙ্ক দিয়ে।

ফ্রি হোস্টিং

WordPress.com, Wix.com বা FourSquare এর মত প্রচুর সাইট আছে যারা ফ্রি তে সাইট বানানোর সুবিধা দেয়। আপনি আপনার প্রডাক্ট সেখান থেকেও সেল করতে পারেন। গিটহাবের তুলনায় একটু বেটার গ্রাফিকাল ইউজার ইন্টারফেস আর কন্ট্রোল পাবেন।

নিজের সাইট

আধুনিকতার এই যুগে সবার নিজের একটি ডোমেইন থাকা স্বাভাবিক। গিটহাব এর লিমিটেশন ভালো না লাগলে যেকোনো যায়গা থেকে ১ হাজার টাকা খরচ করে একটু খানি হোস্টিং নিয়ে শুরু করে দিন। কেউ থামাইতে পারবে নাহ!

দেশে এখন অর্ধশতাধিক কোম্পানি আছে যাদের আগে মেইন রেভেনিউ সোর্স ছিল থিমফরেস্ট, থিম হিপ্পো, WordPress.org ইত্যাদি। এখন তারা নিজেদের সাইট থেকে সরাসরি সেল করে। জুমশেপারের তো নিজেদেরই মার্কেটপ্লেস আছে ২ টা।

 

আপাতত আমার মাথায় এইটুকু আইডিয়া আছে। আপনিও কিছু এড করতে চাইলে জানাতে পারেন কমেন্ট সেকশনে। আর যেকোনো প্রশ্নের জন্যও কমেন্ট বক্স সবার জন্য উন্মুক্ত 🙂

Excellent Communication Skills – মানে কি! [জব/ইন্টারভিউ এর যে সিক্রেট কেউ বলে না]

প্রায় চাকরির বিজ্ঞাপনে লেখা থাকে যে প্রার্থীর যোগাযোগের দক্ষতা খুব ভালো হতে হবে। এটা আমরা দেখে মনে করি এ আর এমন কি! আমি তো সাবলীল ভাবেই কথা বলতে পারি। ইংরেজি বাংলা কোন ভাষাতেই সমস্যা নাই। দীপিকা পাডুকোন রে দেখে হিন্দিও তো শিখসি :p

কিন্তু এই কমিউনিকেশন মানে শুধু যোগাযোগ না, আন্তরিক এবং প্রফেশনাল যোগাযোগ। বিশেষ করে আপনি যদি অনলাইনে কাজ করেন। সোজা করে বললে একজন ফ্রিল্যান্স প্রফেশনাল এর ক্যারিয়ার ধ্বংস করার জন্য যেমন কমিউনিকেশন দায়ী, ঠিক তেমনি তার রক সলিড রেপুটেশন এর জন্যও সেই কমিউনিকেশন ই গুরুত্বপূর্ণ।

যদি আপনি কোন কাজ বোঝেন এবং পারেন, ঠিক কতটুকু বোঝেন বা পারেন এবং ঠিক কোন অংশটুকুর জন্য আপনার সাহায্য সহযোগিতা প্রয়োজন তা আপনার কলিগ এবং ম্যানেজারের কাছে পরিষ্কার করা হচ্ছে কমিউনিকেশন।

কোন কারনে কাজ করতে দেরি হলে বা কাজে কমপ্লিকেশন আসলে সেটা সঠিক ভাবে ঠাণ্ডা মাথায় জানানো হচ্ছে কমিউনিকেশন।

দায়সারা ভাবে ডেডলাইন মিট করার জন্য কাজ করে দিয়ে অসম্পূর্ণ কাজ দেওয়াটা হচ্ছে মিস কমিউনিকেশন।

কাজে কোন সমস্যা ফেস করলে সেটা টিমমেট এবং ম্যানেজারের সাথে শেয়ার না করে মন খারাপ করে থাকলে, সেটা মিস কমিউনিকেশন।

এই ব্যাপার গুলো আমি এবং আমার পরিচিত কাউকে খেয়াল করতে দেখিনি। এমনো দেখেছি, নিজে বুঝতে পারছেন যে তার কমিউনিকেশনের জন্য তিনি এখন বিপদে আছেন, কিন্তু তারপরও তিনি তা সমাধানে কোন প্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করছেন না।

এই কমিউনিকেশন স্কিল কিন্তু শুধু প্রফেশনাল লাইফেই না, আমাদের ব্যাক্তিগত জীবনেও সমান গুরুত্বপূর্ণ। কারো সাথে কথা বলে অস্বস্তি হলে সেটা তাকে জানিয়ে সমাধান করলে শান্তিতে থাকা যাবে। তার ফোন রিসিভ না করে, দেখেও না দেখার ভান করলে অস্বস্তি আজীবন থেকে যাবে।

আমার নিজেরও এই ধরনের সমস্যা আছে। তবে গত ৫-৬ মাস ধরে কাটিয়ে ওঠার জন্য জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এজন্য যে স্টেপ গুলো ফলো করছি তা হল-

১। সঠিক সময়ে কথা বলা
প্রত্যেকটা কথার সময় আছে। ভালো কথা, মন্দ কথা, সাধারণ আলোচনা যা-ই হোক। সময়ের দিকে খেয়াল রাখার চেষ্টা করি। খুশির সংবাদ গুলো সকালে অথবা রাতে দেওয়ার চেষ্টা করি। দুঃখের খবর শুধুমাত্র রাতে। আর সাধারণ আলোচনা লাঞ্চ টাইমের পরে।

২। কথা গুছিয়ে বলা
বন্ধুকে হয়তো কোন একটা পোষাকে মানাচ্ছে না; তাকে সরাসরি “এই তোরে এইটায় ভাল্লাগেনা” না বলে একটু ঘুরিয়ে বলার চেষ্টা করি “অন্য কিছু ট্রাই কর”। অর্থাৎ সমস্যার দিকে সরাসরি আঙ্গুল না তুলে একটা ভালো সমাধান প্রস্তাব করা। কারো আইডিয়া একেবারেই বস্তা পচা হলেও সেটা তাচ্ছিল্য না করে বা সরাসরি অগ্রাহ্য না করে তাকে ধন্যবাদ দিয়ে সেই আইডিয়াকে একটু ঘুরিয়ে বাকিয়ে সঠিক দিকে আনা। সহজ করে বললে মিটিং গুলোতে ডিপ্লোম্যাটিক হওয়া।

৩। কি করতে হবে সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া
বেশির ভাগ মিটিং এ সিনিয়র বা বস খুব সংক্ষেপে কি করতে হবে বলে দেন। কিন্তু যেকোনো কাজ শুরু করার আগে একটা কনসেপ্ট থাকে বা প্রয়োজন সেইম ক্লায়েন্টের জন্য সেইম কাজে একেক সময় একেক রকম হতে পারে। বিশেষ করে স্টার্ট আপ গুলোতে অনেক সময় কোন নির্দেশনা-ই দেওয়া হয় না। অনেক সময় নিজেকে একটা কাজ বুঝে রেডি করতে হয়, কিন্তু শেষ করার পর বস বলতে পারেন আমি তো রোদ না জোছনা চেয়েছিলাম। তাই যতটুকু সম্ভব কাজ শুরু করার আগে নিশ্চিত হয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে যে আপনি যা ভাবছেন তা সবার সাথে মিলছে কি না। তবে বিরক্ত বোধ করলে প্রশ্ন করার ব্যাপারে একটু কৌশলে ম্যানেজ করে নিতে হবে। কিন্তু প্রশ্ন করলে বিরক্ত হয় বলে একেবারে অন্ধকার কুয়াতে ঝাঁপিয়ে পরা যাবে না।

৪। দেরি হওয়া মানে যেন অবহেলা না হয়
ভার্চুয়ালি কাজ করলে অনেক সময় কমপ্লিকেশনের জন্য ২-৩ দিন লেট হয়ে যায়। পারতেছি না, বা সমস্যা ধরতে কষ্ট হচ্ছে এটা না বলে ঘাপটি মেরে থাকতাম। ৩ দিন পরে ক্লায়েন্ট নিজে থেকে আপডেট জিজ্ঞেস করলে তখন বলতাম, ভাই করতেছি তো! সে যেত ক্ষেপে। এখন সেই সুযোগ না দেওয়ার চেষ্টা করি। যদি ৩ দিন ধরে সমস্যা খোঁজ করায় ব্যাস্ত থাকি, ৩ দিনই মেইল দিয়ে বলি, ভাইরে আজকেও সমস্যা খুঁজে পাই নাই। প্লিজ রাগ কইরো না। আমি যথেষ্ট আন্তরিক ভাবে কাজ করতেছি। সেও তখন বলে ঠিক আছে সময় নাও।

৫। সে কেন বুঝলো না!
ওয়ার্কপ্লেস এ সবাই একসাথে একটা সিঙ্গেল গোল নিয়ে কাজ করতে যায়। এখানে ফ্যামিলি, পরিবার টাইপ শব্দ ব্যবহার করা হলেও তা বেশি সিরিয়াসলি নেয়া ঠিক না। এখানে সবাই আসছে স্যালারি এবং নিজের ক্যারিয়ার গড়ার জন্য। অতএব নিজের স্বার্থে অনেকে অনেক কিছু বুঝলেও অনেক সময় না বুঝার মত করতে পারে। আপনিও যদি অভিমান করে বসে থাকেন, এই সমস্যা কখনো সমাধান হবে না। বরং “ফ্যামিলি” এর মধ্যে দ্বন্দ্ব বাড়বে। স্কুলের মত সেইম ক্লাসেই অনেক গুলা আলাদা গ্রুপ হয়ে যাবে। এটা যেকোনো মূল্যে এভয়েড করতে হবে। বস বা কলিগ যে কেউ ভুল বুঝলে তার সাথে ঠাণ্ডা মাথায় চা কফি খাওয়ার সময় কথা বলুন। বস আপনার প্রয়োজন না বুঝলে তার সাথেও সোজাসুজি আলোচনা করুন। মানুষ একজন মানুষের মন পড়তে পারে না। তাকে জানাতে হয় আমি এমন অনুভব করছি। এই জন্যই প্রবাদ আছে, “কান্না না করলে মা বুঝেন না বাচ্চার খাওয়া প্রয়োজন”।

 

কার্যকর কমিউনিকেশন নিয়ে আপনিও দুই লাইন কমেন্টে শেয়ার করতে পারেন 🙂